গডলি জোকস – ২

বাংলাদেশি সেই সাংবাদিক এরপর ফিরে গেলেন স্বর্গে তাঁর নিজস্ব কক্ষে, একটু আগে ক্লিন শেইভড ভদ্রলোক যিনি কিনা একজন আইটি এক্সপার্ট তাঁর দেয়া তথ্যে সাংবাদিকের কপালে হালকা ঘাম দেখা যাচ্ছে। ভদ্রলোক বলে কী ! সে নাকি বাংলাদেশের সিসিটিভি স্ক্রিন হ্যাক করে রাখছে আবার বলে কী- পুরো মহাজাগতিকের সার্ভারও নাকি হ্যাক করেছিল , তারপর নতুন বাগ ফিক্স এপস নামিয়ে খোদা এবং তাঁর এক্সিকিউটিভ ফেরেশতা কমিটি সেটিকে ঠিক করে এনেছে। তাও সেটা নাকি কয়েক বিলিয়ন বছর আগেকার ঘটনা। এরকম ভাবতেই সাংবাদিক সাহেব আরো ঘেমে যাচ্ছিলেন। তিনি তাঁর স্মার্ট ফোন থেকে ‘মিট উইথ দি অলমাইটি’ এপ্সটিতে কানেক্ট করলেন যা এখানে প্রবেশের আগেই স্বর্গের পাহারাদার ফেরেশতা মিঃ হ্যাড্রানায়েল তাকে লগ ইন দিয়ে দিয়েছেন।

তো এপসে লগ ইন করে সাংবাদিক সাহেব একটা এপয়েনমেন্ট ফিক্স করলেন খোদার সাথে। বাংলাদেশি সাংবাদিক গরম লাগার কারণে তাঁর স্বর্গের রুমে ফ্যানের সুইচ খুঁজলেন কিন্তু পেলেন কিছুই। সাংবাদিক সাহেব এপসে ‘রিজন ফর মিটিং’ এ লিখলেনঃ ওয়েটিং রুমে সেই আইটি এক্সপার্ট এর কথা এবং পরের প্যারায় লিখলেন স্বর্গে ফ্যান বা এসি নেই।

তো কয়েক মাস পর সাংবাদিক সাহেব এপয়েন্টমেন্ট পেলেন এবং নির্ধারিত ওয়েটিং রুম এ বসলেন। লাউড স্পিকারে একজন করে নাম ঘোষণা হচ্ছে আর এক জন করে কক্ষ থেকে উঠে যাচ্ছে। সাংবাদিক সাহেব বসে বসে একটু বিরক্ত হয়ে গেলেন, আজকে ভিড় আগের দিন থেকে বেশি এবং মানুষ অনেক বেশিই অস্থির হয়ে আছে। পৃথিবীতে নতুন মহামারি করোনার কারণে সবাই তাদের আত্মীয়-স্বজনের খবর নিচ্ছেন। এরমধ্যে অনেক সদ্যমৃত করোনায় আক্রান্ত রোগীও ছিল, যারা খবর নিতে এসেছেন তাদের বেতন ও বোনাস না দেয়া বসেরাও করোনায় মরেছে কিনা।

সাংবাদিক সাহেবের পাশে এসে আবার সেই ক্লিন শেইভড ভদ্রলোক বসলেন, আজকে আরো পড়িপাটি, স্যুটেড ব্যুটেড, গা দিয়ে অসাধারণ সুগন্ধির ঘ্রাণে সাংবাদিক সাহেব মুগ্ধ হয়ে গেলেন। সাংবাদিককে কিছু বলার সুযোগ না দিয়ে ভদ্রলোক বলে উঠলেনঃ ‘ দেখুন কি একটা অবস্থা! স্বর্গের ফার্স্ট ক্লাস স্যুইটে নাকি কোন এসি বা ফ্যানের সুইচ নাই ! সাংবাদিক সাহেব মন্ত্রমুগ্ধের মতো তাকালেন ক্লিন শেইভড আইটি জিনিয়াস ভদ্রলোকের দিকে, বললেনঃ হ্যাঁ, একটু বিরক্তিকরও বটে, স্বর্গে এমনটা হবে আমি একদমই আশা করিনি। এটার কি কোন ট্রাবলশ্যুটিং আছে?’ ক্লিন শেইভড ভদ্রলোক প্রতিউত্তরে বললেন – না এটার ট্রাবলশ্যুটিং নেই, কারণ স্বর্গে এয়ারকন্ডিশনিং ইন্সটল করা হয়নি। আপনি এই মিটিংয়ে পরম করুনাময় খোদাকে এটার ব্যাপারে বলতে পারেন।’ সাংবাদিক সাহেব জিজ্ঞাসা করলেনঃ আচ্ছা আপনার আজকের মিটিংয়ের কারন কী, যদি অসুবিধা না থাকে তাহলে কি বলা যাবে? ক্লিন শেইভড ভদ্রলোক বললেনঃ না বলতে কোন অসুবিধা নাই, আমি আসলে একজন এক্সপেরিয়েন্সড ইলেক্ট্রেশিয়ানও বটে। আপনার কমপ্লেইনের পর আমাকে রিকমেন্ড করতে পারেন, আমি গডের সাথে কথা বলব স্বর্গে রিনোভেশনের ব্যাপারে।

এই কথোপকথনের মাঝখানেই বাংলাদেশি সাংবাদিকের ডাক আসলো, সামনে বিরাট পর্দা, দূর থেকে আলো আর কন্ঠ ভেসে আসে। অনেক বড় হলরুম, কিছুটা গেইম অব থ্রোন্স এর থ্রোন রুম এর মত, খালি আয়রণ থ্রোনটা মিসিং। যাই হোক, গমগমে কন্ঠ ভেসে আসলো – কী ব্যাপার সাংবাদিক সাহেব ! আপনার এসি বা ফ্যান কেন দরকার? সাংবাদিক ভয়ার্ত আর মিনমিনে কন্ঠে জবাব দিলেন- হুজুর আমি আমার নির্ধারিত স্যুইটে প্রবেশের পর গরম অনুভব করতে লাগলাম, তাই আর কি ফ্যান বা এসির রিমোট খুঁজছিলাম আর মাই কমপ্লায়েন্স এপসেও কিছু খুঁজে পাইনি যা দিয়ে ঠান্ডা খাওয়া যায়। খোদা ভাবলেন ঠিকই তো , ব্যাপার কি? এই বাংলাদেশি ব্যাটার তো গরম লাগার কথা না, ওর রুম টেম্পারেচার বাংলাদেশের সিজনগুলির সাথে সিঙ্ক্রোনাইজ করা আছে, বাংলাদেশে আম-কাঁঠাল পাকবে এই ব্যাটার রুমে ঐ ঘ্রাণ থাকবে আবার বৃষ্টি হলে মৃদু ঠান্ডা বাতাস বইবে কক্ষে, এটাই তো হওয়ার কথা। গমগমে কন্ঠে ভেসে আসলো- দাঁড়াও হে সাংবাদিক , আমি গেব্রিয়েল কে কল করে দেখতেছি। ফোনের শব্দ শুনলেন সাংবাদিক সাহেব- পুরুম পুরুম…হ্যালো হ্যাঁ গ্যাব্রিয়েল, আমরা কি বাংলাদেশি সাংবাদিকের রুমে ঠিক মতো টেম্পারেচার সিঙ্ক্রোনাইজ করছি ? ঐ পাশ থেকে কী জবাব আসলো তা ঠিক মতো শোনা গেলনা। সাংবাদিক সাহেব দেখলেন থ্রোন রুমের আলো ধীরে ধীরে বেগুনি রঙ ধারণ করছে। এর অর্থ ওরিয়েন্টেশনে সেইন্ট পিটার্স ভাল করে বুঝিয়েছিলেন- ক্রোধ, ক্রোধের রঙ স্বর্গে বেগুনি!

সাংবাদিক সাহেব অপেক্ষা করছেন গমগমে কন্ঠের জন্য, শুনতে পেলেনঃ সাংবাদিক সাহেব, আমরা দুঃখিত সাময়িক অসুবিধার জন্য , আপনার রুম হ্যাক হয়েছিল, আমাদের আইটি সাপোর্ট চেষ্টা করছে বাগ ফিক্সের জন্য, ওরা অবশ্যই হ্যাকারকে গ্রেপ্তার করবে।বাংলাদেশি সাংবাদিক এবার রেগে মেগে বললেন- ঐ যে দেখেন ওয়েটিং রুমে ক্লিন শেইভড ভদ্রলোক, যে কিনা মহাজাগতিক বিশ্বের সার্ভার হ্যাক করেছে তাকে বলেন আমার রুমের টেম্পারেচার ফিক্স করতে, সে একজন ইলেক্ট্রেশিয়ানও বটে। আপনার আইটি টিমের সবগুলা উগান্ডার মন্ত্রীদের মত, কোন কাজের না। এই দেখেন ঐ ক্লিন শেইভড লোক নিজেই স্বীকার করেছে যে ঊনপঞ্চাশ বছর আগে সে কিনা বাংলাদেশের সিসিটিভি স্ক্রিন হ্যাক করেছে আর আপনি নিজেই কিনা জানেন না সেই খবর, আবার আপনি নাকি স্বর্গের সিইও ! ঐ পাশ থেকে গমগমে কন্ঠ ভেসে আসলো- ধরে আনা হোক সেই ভদ্রলোককে। সাথে সাথে স্বর্গের সোয়াট টিম চলে গেল সেই ভদ্রলোক কে ধরতে এবং ক্লিন শেইভড ভদ্রলোক দাঁড়ালেন সাংবাদিক সাহেবের পাশেই। সাংবাদিক সাহেব অবাক হয়ে দেখলেন তাদের দুইজনের পেছনে স্বর্গের পুরো সোয়াট টিম এম সিক্সটিন নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে।

গমগমে লাউডস্পিকারে কন্ঠ ভেসে আসলো- কী করছো স্বর্গে তুমি , হে শয়তান। স্যুটেড ব্যুটেড ভদ্রলোক জবাব দিলে- ইয়া খোদা, কন্ট্রাক্টারির এক নতুন আইডিয়া মাথায় আসছে তাই আমি বাংলাদেশি এই সাংবাদিক সাহেবের রুমের টেম্পারেচার সৌদির সাথে সিঙ্ক্রোনাইজ করে দিছিলাম। গমগমে কন্ঠে ভেসে আসলো- কী তোমার চাহিদা হে শয়তান, তোমাকে সব দেয়া হয়েছে , তোমার আবার নতুন করে কন্ট্রাকটারি করে টাকা কামানোর কী দরকার? ক্লিন শেইভড শয়তান জবাব দিলঃ ইয়া খোদা, এখন পর্যন্ত আমার রেভ্যিন্যুউয়ের একটা বড় অংশ আসতো পদ্মা সেতু প্রজেক্ট আর মেট্রোরেইল প্রজেক্ট দিয়ে কিন্তু করোনার কারণে সব আটকায় গেছে,কোন ইনকাম আসতেছে না, তাই ভাবলাম স্বর্গের এয়ার কন্ডিশনিং এর কন্ট্রাক্ট টা পাওয়া যায় কিনা। এতে স্বর্গের অধিবাসীদেরই সুবিধা তারা যখন ইচ্ছা তখন কুলিং আর হিটিং করবে, এপ্স সিংকের কোন দরকার নাই। আর আপনার এপ্সটা এপল আইটুইন্সের মতো, কয়দিন পর পর আপডেট চায়, আমার কাছে অনেক কমপ্লেইন আসছে।

খোদা ভাবলেন শয়তানকে তাড়ানোর আর লোভ দেখানোর এর চাইতে মোক্ষম সময় আর পাওয়া যাবে না, প্রতিউত্তরে বললেন- শোন শয়তান, তুমি বাংলাদেশে গিয়ে সব গার্মেন্টস খুলে দিতে বল, আজকে থেকে গার্মেন্টসের সব রেভ্যিনিউ তোমার। আর এইবার আসো এয়ার কনের কন্ট্রান্টারিতে- এই কন্ট্রাক্ট তো তুমি পাবাই না, বরং তোমাকে আমি স্যু করব বাংলাদেশের সিসিটিভি হ্যাক করার কারণে।

শয়তান হাই দিতে দিতে বললঃ হুজুর, লাভ নাই, সব ল’ইয়ার রা আমার সাথে দোযখে থাকে, ওদের সবার কন্ট্রোল আমার হাতে। আপনি স্যু করবেন কিন্তু মামলা চালানোর জন্য স্বর্গে একজনও উকিল-ব্যারিস্টার পাবেন না।

ক্লিন শেইভড ভদ্রলোক তাঁর দুই পাশের দুই পাখা বের করলেন, উড়ে যাওয়ার আগে বাংলাদেশি সাংবাদিক সাহেবের চেহারাটা দেখে আবারো মুচকি হাসলেন , থ্রোন রুমে সাইরেন বেঁজে উঠল- মহামতি শয়তান প্রস্থান করলেন।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s